ভোলার বাজারে সরকার নির্ধারিত দামে বিক্রি হচ্ছে না বেশীরভাগ পন্য

প্রথম পাতা » এক্সক্লুসিভ » ভোলার বাজারে সরকার নির্ধারিত দামে বিক্রি হচ্ছে না বেশীরভাগ পন্য
মঙ্গলবার, ১৯ মার্চ ২০২৪



ছোটন সাহা ॥ভোলাবাণী।।

সরকার ২৯টি পণ্যের দাম নির্ধারন করে দিলেও তার প্রভাব পড়েনি ভোলার বাজারে। ব্যবসায়ীরা তাদের ইচাছেমত পন্য বিক্রি করছে বলে অভিযোগ ক্রেতাদের। সোমবার (১৮ মার্চ) বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, সরকার নির্ধারিত দামে বিক্রি হচ্ছে না বেশীরভাগ নিত্যপন্য।

সবজির দাম কিছুটা নাগালের মধ্যে থাকালেও চিনি, সোয়াবিন তেল ও সোলার দাম বেড়েছে গড়ে ২-৫ টা পর্যন্ত। খেজুর ও তেলুব দাম বেড়েছে।

 

ভোলার বাজারে সরকার নির্ধারিত দামে বিক্রি হচ্ছে না বেশীরভাগ পন্য

চিনি ১৪৫ টাকার স্থলে ১৪৬ টাকা, সোয়াবিন তেল (খোলা) ১৬৫ টাকা স্থলে দাম বেড়ে হয়েছে ১৬৮ টাকা, কাচা মরিচ কেজিতে বেড়েছে ১০ টাকা। যা পূর্বের দাম ছিলো ৫০ টাকা। সেটি এখন বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা দরে। শসা কেজি ৫ টাকা বেড়ে বিক্রি হচাছে ৪০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত। অন্যদিকে পামওয়েল ১৩৮ টাকার পরিবর্তে ১৪২ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। নাগালের মধাযে নেই সরবতের দাম।

এদিকে আলুর দাম বেড়েছে কেজিতে ২ টাকা। পুর্বে ২৮ টাকা দামের পরিবর্তে বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩২ টাকা দরে। তবে বাজারে খেসারি ডালের কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে ১৩০ টাকা। যা রমজানের আগে ছিলো ৯৫ থেকে ১০০ টাকা। একই অবস্থা সোলার। যেটি কেজিতে ৯০ টাকার স্থলে বিক্রি হচাছে ১০৫ টাকায়। বাজারে স্থিতিশীল রয়েছে টমেটো, গাজর, আদা, পেয়াজ, রসুন ফুলকপি ও বাধা কপির দাম। তবে কেজিতে ৫টাকা বেড়েছে করলার দাম। অন্যদিকে লেবু হালিতে বিক্রি হচ্ছে ৩০ থেকে ৩৫ টাকা দরে। যা আগে ছিলে ২০-২৫ টাকা। হলুদের গুড়ার দাম কিছুটা বাড়লেও স্থিতিশীল অন্য মসলার দাম।

ক্রেতারা আকবর, সোলাইমান ও নিয়াজ বলেন, প্রতিদিনই কোন পন্যের দাম বাড়ছে, এতে নি¤œ ও মধ্যবৃত্ত মানুষের অবস্থা খুবই নাজুক। বাজার মনিটরিং জরুরি।

এদিকে গরু ও খাসির মাংসের দাম স্থীতিশীল থাকলেও মাছের দাম আকাশ ছোয়া। নদীতে দু’মাস মাছ ধরা বন্ধ থাকায় বাজারে মিলছে পুকুর ও ঘেরের মাছ। কিন্তু সেসব মাছের দাম আকাশ ছোয়া। রুই- কাতাল কেজি প্রতি বিক্রি হচাছে ৬০০ টাকা, কই, চিংড়ি বিক্রি হচ্ছে এক হাজার টাকা। ছোট মাছ বিশেষ করে কাচ্চিগুড়া, মলন্দা মাছ কেজিতে ৪০০ টাকা। বেড়েছে পাঙ্গাস মাছের দামও। তবে স্থিতিশীল বয়লার, সোনালি মুররি। তবে বৃদ্ধির দিকে দেশী মুরগির ও ডিমের দাম। দেশী মুরগির ডিম হালি প্রতি ৭৫ টাকা, বয়লার ৪০ টাকা এবং হাসের ডিম হালি প্রতি ৬৫ থেকে ৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

ক্রেতাদের অভিযোগ, সব ধরনের মাছ কেজিতে বেড়েছে ১০০ থেকে ৩০০ টাকা পর্যন্ত। যে কারণে নাভিশ্বাস ক্রেতাদের।

ক্রয় ক্ষমতার বাইরে থাকায় বাজার করতে এসে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ক্রেতারা। তাদের বাজার মনিটরিয়ের দাবী তাদের।

এ ব্যাপারে ভোলার জেলা প্রশাসক আরিফুজ্জামান বলেন, নিত্যপন্যের দাম নিয়ন্ত্রনে প্রতিদিন বাজার মনিটরিং করা হচ্ছে। বেশী মূল্য বিক্রির সুযোগ নেই।

বাংলাদেশ সময়: ১৫:০৫:০৭   ৭১ বার পঠিত  |




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

এক্সক্লুসিভ’র আরও খবর


ভোলাবাসীকে ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মোঃ আকতার হোসেন
ভোলাবাসীকে ঈদের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন জেলা বিএনপির আহ্বায়ক গোলাম নবী আলমগীর
ভোলাবাসীকে পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মিজানুর রহমান শাহিন
অসহায়দের পাশে দাঁড়ানোর আহ্বান ভোলাবাসীকে পবিত্র ঈদ উল ফিতরের শুভেচ্ছা জানিয়েছেন মজনু মোল্লা
চরফ্যাশন মনপুরাবাসীকে পবিত্র ঈদ উল ফিতরের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়েছেন এমপি জ্যাকব ॥
ভোলায় ৩ শতাধিক অসহায় দুস্থ পরিবারের মুখে হাসি ফুটালো বিবা’র মানবতার দেয়াল
দক্ষিণ আইচায় স্কুল ছাত্র নয়নের রিমোট কন্ট্রোল নিয়ন্ত্রিত লঞ্চ ভাসছে পানিতে
ভোলার বাজারে সরকার নির্ধারিত দামে বিক্রি হচ্ছে না বেশীরভাগ পন্য
বীর মুক্তিযোদ্ধা গাজী আব্দুর রউফ’র ৮ম মৃত্যুবার্ষিকী আজ
ভোলায় রমজান উপলক্ষে ইফতার ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করলেন কাঞ্চন-ফাতেমা ফাউন্ডেশন

আর্কাইভ