শিরোনাম:
ভোলা, রবিবার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮

Bholabani
বৃহস্পতিবার ● ১৪ জানুয়ারী ২০২১
প্রথম পাতা » প্রধান সংবাদ » মনপুরার অপার সম্ভবনাময় দখিণা হাওয়া সী-বীচে পর্যটকে মুখরিত ।
প্রথম পাতা » প্রধান সংবাদ » মনপুরার অপার সম্ভবনাময় দখিণা হাওয়া সী-বীচে পর্যটকে মুখরিত ।
৩৮৭ বার পঠিত
বৃহস্পতিবার ● ১৪ জানুয়ারী ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

মনপুরার অপার সম্ভবনাময় দখিণা হাওয়া সী-বীচে পর্যটকে মুখরিত ।

খলিল উদ্দিন ফরিদ।।ভোলাবাণী।।

বাংলাদেশের বৃহওম দ্বীপ ভোলা জেলার মুল ভুখন্ড থেকে বিচ্ছিন্ন প্রাকৃতিক অপরুপ সৌন্দর্যের সী-বিচ আর হরিণের চারনভুমি খ্যাত রূপালী দ্বীপ মনপুরা । মেঘনা নদীবেষ্টিত সবুজ শ্যামল ঘেরা অপরূপ সৌন্দর্যের লীলাভূমি মনপুরা। প্রায় এক কিলোমিটার দীর্ঘ এ বিচটিকে ঘিরে পর্যটনের নতুন সম্ভাবনা দেখছে স্থানীয়রা। যার নাম রেখেছে ‘দক্ষিণ হাওয়া সী-বিচ’। সু বিশাল নদী-নালা ,চতুর্দিকে বেড়ীবাঁধ,,বিভিন্ন ধরনের ধানের ক্ষেত, বিশাল ম্যানগ্রোভ প্রজাতির গাছের বাগনে সমৃদ্ব মনপুরা।

---

মনপুরা উপজেলা দেশের অন্যান্য অঞ্চলের মানুষের কাছে যেমন আকর্ষণীয় ও দর্শনীয় জায়গা তেমনি বিদেশীদের কাছেও। যেসব জেলার বা বিভাগের লোকজন মনপুরা ভ্রমনে বা কাজের জন্য এসেছেন বা অবস্থান করেছেন এখানকার মানুষকে দেখে মুগ্ধ হয়েছেন এবং ভালবেসেছেন। এখানে না আসলে বোঝাই যাবেনা সবুজের দ্বীপ মনপুরায় কি সৌন্দর্য লুকায়িত আছে। পর্যটনের কি অপার সম্ভাবনা লুকিয়ে আছে পুরানো এ দ্বীপে। পর্যটক আর ভ্রমন পিপাসু মানুষকে মুগ্ধতার বন্ধনে আটকে দেওয়ার বহু উপকরন রয়েছে এ দ্বীপে ।

---

এখানে সকাল বেলার সুর্য যেমন হাঁসতে হাঁসতে পুর্বদিকে ডিমের লাল কুসুমের মত উদিত হতে দেখা যায়, তেমনি বিকেল বেলাতেও আকাশের সিঁড়ি বেয়ে লাল আভা ছড়াতে ছড়াতে পশ্চিম আকাশে মুখ লুকায়। মনপুরাতে এসেই কেবল সুর্যোদয় ও সুর্যাস্থ প্রত্যক্ষ করা যায়। মনপুরায় এখন নতুনভাবে গড়ে উঠেছে দখিণা-হাওয়া সী-বীচ। যা পর্যটকদের বাড়তি আকর্ষন।

---

মনপুরার সবচেয়ে আকর্ষণীয় বিষয় হচেছ ম্যনগ্রোভ প্রজাতির সারিসারি বাগান। মনপুরায় ছোট বড় ৮-১০ টি চর ও বন বিভাগের প্রচেষ্টায় গড়ে উঠেছে সবুজ বিপ্লব। মাইলের পর মাইল সবুজ বৃক্ষরাজির বিশাল ক্যাম্পাস মনপুরাকে সাজিয়েছে সবুজের সমারোহে। শীত মৌসুমে শতশত পাখির কলকাকলিতে মুখরিত থাকে এসব চরাঞ্চল।মনপুরা ভ্রমণের

উপযুক্ত সময়ঃ

শীতকালে মনপুরার আসল সৌন্দর্য উপভোগ করা যায়। আবার এখানে ক্যাম্পিং করার জন্য শীতকালেই উপযুক্ত সময়। বর্ষায় চরের অধিকাংশ অংশই ডুবন্ত থাকে তাই বর্ষাকালে মনপুরা ভ্রমণ না করাই শ্রেয়। মনপুরা ভ্রমণের জন্য নভেম্বর-মার্চ মাস সবচেয়ে উপযুক্ত সময়।

---

কোথায় থাকবেন

মনপুরায় সরকারি রেস্ট হাউসে অনুমতি নিয়ে রাত্রি যাপন করতে পারবেন। রেস্ট হাউজে থাকতে চাইলে আগেই জানিয়ে যাওয়া ভালো। রেস্ট হাউসের রুমগুলোর ভাড়া ১৫০-৫০০ টাকা। যোগাযোগ মোঃমাকসুদ ,মোবা্লি নং-০১৯৩৪-১৭৫৩৬৯। এছাড়া মনপুরা শহরে ৫/৬ টি ভালো মানের আবাসিক হোটেল রয়েছে।ভাড়া ৫০০ -১০০০ টাকা। হোটেল সীয়াম প্লাজা,হোটেল হানিফ আবাসিক,হোটেল আরাফ ওহি । আবাসিক হোটেলের জন্য যোগাযোগের ফোন নম্বর-০১৭২০-২২৬১২৮

---

কোথায় কি খাবেন

এখানে শুধু প্রাকৃতিক সৌন্দর্যই দেখা যায়না । এখানে খাবারের রীতিমত আইটেম ছাড়াও বিশেষ বিশেষ কিছু খাবার লক্ষ করা যায়। শীতের হাঁস, মহিষের কাচা দধি,টাটকা ইলিশ,বড় কই,জাগুর, কোরাল,বোয়াল ও গলদা চিংড়ি। মেঘনা নদী থেকে ধরে আনা টাটকা ইলিশ ও চর থেকে আনা কাঁচা দুধের স্বাদই আলাদা।

 

---

কিভাবে যাবেন

মন চাইলে যে কেউ মনপুরা আসতে বা যেতে পরবেনা। এখানে যোগাযোগ ব্যবস্থা পরিচালিত হচেছ রুটিন মাফিক। প্রতিদিন ঢাকা থেকে একটি লঞ্চ বিকাল সাড়ে ৫টা ,আরেকটি লঞ্চ সাড়ে ৬ টায় হাতিয়ার উদ্দেশ্যে ছেড়ে মনপুরা হয়ে পরদিন সকাল ৯টার সময় হাতিয়া পৌছে। ঐ লঞ্চ ২টি আবার হাতিয়া থেকে ছাড়ে দুপুর ১২ টায় আরেকটি ১টায়। মনপুরাতে আসে দুপুর ১ টায় আরেকটি ২টায় এবং ১ ঘন্টা যাত্রা বিরতি থাকে রামনেওয়াজ লঞ্চঘাটে। মনপুরার মানুষ যে লঞ্চে করে ঢাকার থেকে মনপুরা আসেন আবার ঐ লঞ্চে করে ঢাকায় চলে যান।

এছাড়া ঢাকা কিংবা বরিশাল থেকে ভোলা হয়ে তজুমুদ্দিন সি-ট্রাক ঘাট থেকে মনপুরা যাওয়া যায়।সী-ট্রাকটি প্রতিদিন সকাল ১০ টায় মনপুরা হাজীর হাট ঘাট থেকে ছেড়ে দুপুর ১২টায় তজুমদ্দিন সীট্রাক ঘাটে পৌছে। আবার ঐ দিন বিকেল ৩ টায় তজুমদ্দিন সী-ট্রাক ঘাট থেকে ছেড়ে সন্ধা ৬ টায মনপুরা হাজীর হাট সী-ট্রাক ঘাটে পৌছে।

অপরদিকে চরফ্যাশনের বেতুয়া ঘাট থেকে মনপুরার সাকুচিয়া জনতা বাজার রুটে দৈনিক ২ টি লঞ্চ চলাচল করে।এছাড়া প্রতিদিন সাকুচিয়া থেকে রামনেওয়াজ হয়ে আলেকজান্ডারের উদ্দেশ্যে একটি লঞ্চ যাত্রা করে।ঐ রুটে দৈনিক শতশত মানুষ যাতায়াত করে।বেসরকারীভাবে তজুমদ্দিন রুটে এবং চরফ্যাশন মনপুরা রুটে স্পীড বোট সার্ভিস চালু আছে। পর্যটকরা কম সময়ে মনপুরা আসতে পারবেন। মনপুরায় ভাল মানের আরো হোটেল গড়ে উঠলে পর্যটকদের অগমন বাড়বে, প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধার ব্যাবস্থা করলে মনপুরা হতে পারে দেশের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র।

---

ঐতিহাসিক বেভারিজ মনপুরার নামকরন নিয়ে লিখেছেন, জনৈক মনগাজি নামের ব্যক্তি সে সময়ের জমিদার থেকে মনপুরা জমি লিজ নেন অষ্ঠাদশ শতাব্দীর মধ্য যুগে । তখন তার নামানুষারে এ দ্বীপের নাম করন হয় মনপুরা। জনৈক ব্যক্তিদের মতে মনগাজি নামের লোকটি বাঘের থাবায় প্রাণ হারালে তখন তার নামানুষারে নাম করন করা হয় মনপুরা। স্থানীয়দের মতে এখানকার খাটি দুধ খেয়ে ও প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের অপরূপ লীলা দেখে মানুষের মন ভরে যেত। এজন্য এর নামকরন করা হয় মনপুরা। তবে মনপুরার নামকরন নিয়ে এখনও মতবিরোধ রয়েছে।১৮৩৩ সালে মনপুরাকে ভোলা জেলার অধীনে চিরস্থায়ী বন্ধোবস্ত দেওয়া হয়। ১৯৮৩ সালে মনপুরাকে উপজেলায় উন্নীত করা হয়। এভাবে এগিয়ে যায় আজকের মনপুরা।
মনপুরা উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও উপজেলা আ’লীগ সভাপতি শেলিনা আকতার চৌধুরী জানান,একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে আমার একটি স্বপ্ন মনপুরাকে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে তোলা। আমরা আমাদের এমপি যুব ও ক্রীড়া মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি আলহাজ্ব আবদুল্লাহ আল ইসলাম জ্যাকব এমপির সাথে সমন্বয় করে পর্যটনের জন্য কাজ করে যাচ্ছি। মনপুরা পর্যটকদের আকৃষ্ট করার মতো অনেক উপকরন রয়েছে।





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
তজুমদ্দিনে ইয়াবাসহ দুই বিক্রেতা আটক ॥
নিজ অর্থায়নে রোজিনার লেখাপড়া ও ঘর নির্মাণের দায়িত্ব নেন এমপি মুকুল।
নাসরিন ট্রাজিটির ১৮ বছর পূর্ণ।।ভোলার ইতিহাসে ভয়াবহ একটি দিন।
লকডাউনে বিপর্যস্ত নিম্ন আয়ের মানুষ
তজুমদ্দিনে তিন এজেন্টকে তিনদিন করে কারাদণ্ড দিয়েছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।
খোঁজ মিলেছে আলোচিত বক্তা আবু ত্ব-হা মুহাম্মদ আদনানের
লালমোহনে স্বেচ্ছাশ্রমে জরাজীর্ণ লাইব্রররিকে সাজিয়েছে শিক্ষার্থীরা
ভিক্ষা নয়, কাজ করে খেতে চায় রোকসানা ॥ বিত্তবানদের সহযোগিতা কামনা
ভোলায় মডেল মসজিদ ও ইসলামিক সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
স্রোতধারা সৃজন শক্তি’র ২য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী অনুষ্ঠিত