ইফতারের সময় দোয়ার গুরুত্ব

প্রথম পাতা » ইসলাম ও ধর্ম » ইফতারের সময় দোয়ার গুরুত্ব
বুধবার, ১২ এপ্রিল ২০২৩



ভোলাবাণী ইসলামিক ডেক্স।। পুরো রমজান মাস দোয়া কবুলের সময়। এ জন্য আমাদের যত প্রয়োজন আছে সেগুলো বেশি করে আল্লাহতায়ালার নিকট চাওয়া। আল্লাহপাক চান, আমরা সেই জিনিসগুলো পেয়ে যাব যেগুলো আমাদের প্রয়োজন। আর যদি নাও পাই, তাহলে সেই চাওয়াটা আখেরাতের জন্য থেকে যাবে। আখেরাতে আমরা সেটা পেয়েই যাব ইনশা আল্লাহ।

ইফতারের সময় দোয়ার গুরুত্ব

হাদিসে ইরশাদ হয়েছে, বান্দা যদি দোয়া করে, হয়তো সে নগদ সেটা পেয়ে যায়, যা সে চাইল। হতে পারে সেটা কিছুটা বিলম্বে হবে। আর দুনিয়াতে সেই জিনিসটা নাও যদি পায়, যে জিনিসটা সে চাইল। তাহলে সে আখেরাতে এর বিনিময়ে পেয়েই যাবে। পরকালে বান্দা এ জন্য তখন আফসোস করতে থাকবে যে, আমার দুনিয়াতে যদি কোনো দোয়াই কবুল না হতো। কবুল না হলে বেশি সুন্দর হতো। আখেরাতে ব্যাপক প্রতিদান দেখে, বান্দা এটা কামনা করবে। এ জন্য আমাদের বেশি বেশি দোয়া করা উচিত।ইফতারের আগ মুহূর্তে দোয়া কবুল হওয়ার বেশি সুবর্ণ সুযোগ। কিন্তু আফসোসের বিষয়, আমরা অধিকাংশ মুসলমান ইফতারের আগ মুহূর্তে ইফতার তৈরিতে বেশি মগ্ন হয়ে যাই। অনেক বেশি আইটেম তৈরি করা হয়। ফলে আর দোয়া করার সময় হয়ে উঠে না।

মুমিনের আসল জীবন তো আখেরাতের জীবন। এ জন্য মুমিনের শান হচ্ছে, সে কি দিয়ে ইফতার করছে এটা দেখবে না। ভালো ভালো খাবার থাকতে হবে, এটা নিয়ে ভাববে না। তার ভাবনায় থাকবে শুধু আল্লাহর স্মরণ, আল্লাহর কাছে ক্ষমার প্রত্যাশা।

ইফতারের সময় যখন ঘনিয়ে আসে, তখন সে বেশি বেশি তওবা-ইস্তেগফার করতে থাকে। সে চিন্তা করে, সারা দিন যেভাবে রোজা রাখা উচিত ছিল, সেভাবে তো আমি পারি নাই। আল্লাহর নিকট তখন সে মনে মনে মাফ চাইতে থাকে, অব্যাহতভাবে মাফ চাওয়া চলতেই থাকে।

তখন সে বেশি বেশি করে আল্লাহর নিকট চাইতে থাকে, দোয়া করে থাকে। যেহেতু এটা দোয়া কবুলের সময়। কোনো আল্লাহওয়ালার সামনে ইফতার যখন পেশ করা হয়, সে তখন খুশি হয়। সে ভাবে, আল্লাহর পক্ষ থেকে আমার নিকট এগুলো পাঠানো হয়েছে। এ জন্য সে খুব খুশি মনে সাদামাটা যা পায় তাই সে খাওয়া শুরু করে। আল্লাহপাক পাঠিয়েছেন কত বড় বিষয়।

যখন সে খাবার খাচ্ছে, ইফতার করছে, সারাদিন অনাহারে থাকার পর তখনো সে আল্লাহপাকের ধ্যান-খেয়ালে মগ্ন থাকে এবং খাওয়ার ফাঁকে ফাঁকে আল্লাহর নিকট বিভিন্ন বিষয় চাইতে থাকে। যত প্রয়োজন আছে, হতে পারে নিজস্ব কোনো বিষয় চাইছে অথবা উম্মতের জন্য যেসব বিষয় কল্যাণকর সেগুলো সে চাচ্ছে। উম্মতের মধ্যে যেসব পেরেশানি চলছে, সেগুলো থেকে আল্লাহর নিকট আশ্রয় প্রার্থনা করছে। মোট কথা সে ইফতারও করছে আবান দোয়াও করতেছে।

আল্লাহর এ আমল খুব বেশি পছন্দ করেন। আল্লাহ দেখেন, সব মানুষ যখন ইফতার খাওয়ায় মগ্ন, মানুষ ইফতারের বিভিন্ন খাবারের স্বাদ গ্রহণ করছে এ সময়ও আমার এই বান্দা আমাকে ভুলেনি। মজার খাবার পেয়েও সে আমাকে ভুলেনি। এখনো সে আমাকে স্মরণ করতেছে, আমার নিকট সে বিভিন্ন বিষয় প্রার্থনা করেছ। আল্লাহর নিকট বান্দার এই আমল খুব বেশি প্রিয়।

এ জন্য ইসলামি স্কলাররা বলেন, ইফতারের আগ মুহূর্তে দোয়া করতে থাকা, ইস্তেগফার করতে থাকা। ইফতার যখন করতে থাকব তখনো আল্লাহর নিকট দোয়া করতে থাকা, নিজের প্রয়োজন, উম্মতের বিভিন্ন প্রয়োজন পূরণ, পেরেশানি কমার বিষয়গুলো নিয়ে দোয়া করতে থাকা। এর দ্বারা আল্লাহর সঙ্গে সম্পর্ক গাঢ় হবে, আমলনামায় অনেক বেশি নেকি জমা হবে এবং আল্লাহর নৈকট্য আরও অনেক বেশি অর্জন হবেÑ ইনশা আল্লাহ।

বাংলাদেশ সময়: ১৪:০৪:৪০   ৮৯ বার পঠিত  |




পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)

ইসলাম ও ধর্ম’র আরও খবর


নারীরা যেভাবে ইতেকাফ করবেন
পবিত্র মাহে রমজানের ৮ সুন্নত
আল্লাহর যেসব হক আদায় করা মুমিনের কর্তব্য
তুরাগতীরে দেশের বৃহত্তম জুমার জামাত অনুষ্ঠিত
আতিথেয়তায় আল্লাহর অনুগ্রহ মিলে যেভাবে
লিবিয়ায় মুসলিম বিজয়ের ইতিহাস
আজ ইসলামী চিন্তাবিদ মাওলানা মোঃ হাবিবউল্লাহ’র ৩য় মৃত্যুবার্ষিকী
কাদের জন্য ওমরাহ , এর ফজিলত ও কবুল হওয়ার শর্ত
ধর্মীয় সম্প্রীতির নতুন ভুবন: আমিরাতে একই কমপ্লেক্সে মসজিদ-গির্জা-সিনাগগ
পবিত্র হজ আজ লাব্বাইক ধ্বনিতে মুখর হবে আরাফাতের ময়দান

আর্কাইভ