শিরোনাম:
ভোলা, বৃহস্পতিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৮ আশ্বিন ১৪২৮

Bholabani
শুক্রবার ● ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১
প্রথম পাতা » জেলার খবর » ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে ভোলা জেলা ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম।
প্রথম পাতা » জেলার খবর » ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে ভোলা জেলা ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম।
৫৪ বার পঠিত
শুক্রবার ● ১০ সেপ্টেম্বর ২০২১
Decrease Font Size Increase Font Size Email this Article Print Friendly Version

ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে ভোলা জেলা ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম।

স্টাফ রিপোর্টার ॥ভোলাবাণী।। ১৬ বছর ধরে পরিত্যক্ত ও ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে ভোলা জেলা ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম। যেকোনো মুহূর্তে ভবন ধসে দুর্ঘটনার আশঙ্কা রয়েছে। বছরের পর বছর এই ভবনে কার্যক্রম চললেও কার্যালয় সরানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।
জেলা ট্রাফিক পুলিশ কার্যালয় সূত্র জানায়, সদর মডেল থানা ক¤পাউন্ডের পরিত্যক্ত ভবনে চলছে কার্যক্রম। গত এক বছরে ট্রাফিক পুলিশের কর্মকর্তারা কয়েক হাজার যানবাহন আটক করেছে। এসব যানবাহনের বিরুদ্ধে দুই হাজার ২৭৭ মামলা করেছে ট্রাফিক বিভাগ। এসব মামলায় কোটি টাকার ওপর জরিমানা আদায় করে সরকারের রাজস্ব খাতে জমা দিয়েছে।

ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে ভোলা জেলা ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম।

ভোলার পুলিশ সুপার (এসপি) সরকার মোহাম্মদ কায়সার বলেন, গত এক বছরে (২০২০ সালের ১ জুলাই থেকে ২০২১-এর ৩০ জুন পর্যন্ত) বিভিন্ন অপরাধে দুই হাজার ২৭৭টি মামলা করা হয়েছে। এর মধ্যে দুই হাজার ২৫টি মামলা নি®পত্তি করা হয়। এসব মামলায় ৮১ লাখ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। ওই টাকা সরকারের রাজস্ব খাতে জমা দেয় ট্রাফিক বিভাগ। চলতি বছরের জুন মাসে ১৫ লাখ ৩২ হাজার ৬০০ টাকা এবং জুলাই মাসে ১৩ লাখ ৯৮ হাজার ১০০ টাকা জরিমানা আদায় করা হয়। করোনার সংক্রমণরোধে চলা লকডাউনে বিধিনিষেধ অমান্য করায় এই দুই মাসে জরিমানার পরিমাণ বেশি।
পুলিশ সুপার বলেন, শুধুমাত্র দুর্ঘটনাকবলিত যানবাহন আটক করা হয়। মামলার পর বেশির ভাগ যানবাহন জরিমানা পরিশোধ করে ছাড়িয়ে নিয়ে যান মালিকেরা। বর্তমানে আটক কোনও যানবাহন নেই। ট্রাফিক পুলিশের মামলা ছাড়াও জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালতে যেসব জরিমানা করা হয়, সেগুলোও রাজস্ব খাতে জমা দেওয়া হয়। মামলার জরিমানা থেকে আয় সংশ্লিষ্ট সরকারি খাতে জমা হয়। এখান থেকে কাউকে কোনও ধরনের সুবিধা দেওয়া হয় না।
তিনি বলেন, সদর মডেল থানা ক¤পাউন্ডের পরিত্যক্ত ভবনে চলছে জেলা ট্রাফিক পুলিশের কার্যালয়। ১৯৪২ সালে নির্মিত ভবনটিতে একসময় ভোলা থানার কার্যক্রম চলতো। গত ১৫-১৬ বছর ধরেই এটি ঝুঁকিপূর্ণ ভবন। ২০১৫ সালে ভবনটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করে গণপূর্ত বিভাগ। বর্তমানে শহরের তিন খাম্বা এলাকায় একটি ভাড়া বাড়ি দেখা হচ্ছে। অনুমোদন পেলে ভবনটি সরিয়ে নেওয়া হবে।
পুলিশ সুপার আরও বলেন, বর্তমানে দুই জন টিআই, তিন জন সার্জেন্ট, এক জন টিএসআই, পাঁচ জন এটিএসআই ও ১৪ জন কনস্টেবল দিয়ে জেলার ট্রাফিক কার্যক্রম চলছে। এখানে আরও জনবল ও কর্মকর্তাদের যানবাহন দরকার।
শহরের বিভিন্ন পণ্যের ডিস্ট্রিবিউটর সাামাদ রবিন বলেন, অভিযানের সময় ট্রাফিক পুলিশ কারণে-অকারণে আমাদের জরিমানা করে। একজন ডিস্ট্রিবিউটর গাড়ি থেকে পণ্য নামিয়ে রিটেইলারের দোকানে পৌঁছে দেয়। অথচ রিটেইলারের দোকানের সামনে গাড়ি দাঁড় করানোর অপরাধে আমাকে তিন হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। আমার মতো এরকম অনেককে জরিমানা দিতে হয়।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা ট্রাফিক সার্জেন্ট সোয়েবুল ইসলাম বলেন, অযথা কাউকে জরিমানা করা হয় না। অনেক জেলায় ট্রাফিক পুলিশের একাধিক জোন রয়েছে। কিন্তু ভোলায় নেই। চরফ্যাশন উপজেলায় ট্রাফিক পুলিশের কার্যক্রম নেই। ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওনের অনুরোধে শহরের একজন সার্জেন্ট লালমোহন বাজারে দায়িত্ব পালন করছেন।





আর্কাইভ

পাঠকের মন্তব্য

(মতামতের জন্যে সম্পাদক দায়ী নয়।)
জাতিসংঘে বাংলায় ভাষণ দেবেন প্রধানমন্ত্রী
অনিবন্ধিত ৫৯ আইপি টেলিভিশন বন্ধ
হুবহু যেন ইলিশ, বহু মানুষ ঠকছেন চন্দনা মাছ কিনে!
বরিশাল-ভোলা=ইলিশা টু মজুচৌধুরী লঞ্চ সার্ভিসের সময়সুচি
মনপুরায় ১০ ফুট লম্বা বিরল প্রজাতির চিচিঙ্গা চাষে কলেজ শিক্ষকের সফলতা
ভোলার প্রান্তিক খামারিরা সরকারের বিনামুল্যে ক্ষুরারোগের ভ্যাকসিন থেকে বঞ্চিত
সরকারি কর্মকর্তাদের ‘স্যার-ম্যাডাম’ বলার নীতি নেই - জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী
ভোলায় ১০৫ কোটি টাকা ব্যয়ে ‘ভোলা টেক্সটাইল ইন্সটিটিউট’ নির্মাণ কাজ সম্পন্ন
ভোলা সদর হাসপাতালে ৪ দালাল আটক।। ১৫ দিনের কারাদন্ড
তীব্র নদী ভাঙনে ছোট হয়ে আসছে ভোলা